বিশ্বকাপে রিচার্ডসনের বদলি রিচার্ডসনকেই বেছে নিল অস্ট্রেলিয়া

গত বছরের জানুয়ারিতে অভিষেকের পর ওয়ান ডে ক্রিকেটে ১২ টি ম্যাচ খেলেছেন এযাবৎ। তবে এই সময়কালেই দলের পেস বিভাগকে ভরসা জুগিয়েছিলেন অস্ট্রেলিয়ার তরুণ ফাস্ট বোলার ঝাই রিচার্ডসন। স্বাভাবিকভাবেই আসন্ন বিশ্বকাপের জন্য মিচেল স্টার্ক-প্যাট কামিন্সদের সঙ্গে ইংল্যান্ডগামী বিমানে ওঠার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু কাঁধের চোটে বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্ন স্বপ্নই রয়ে গেল ঝাই রিচার্ডসনের, হয়তো বা দীর্ঘায়িত হল।

কাঁধের চোটের কারণে বিশ্বকাপের মহড়া হিসেবে পাকিস্তান সিরিজেও দলের বাইরে ছিলেন ঝাই। তবে রিহ্যাবে নিজেকে দুরন্তভাবে মেলে ধরছিলেন তিনি। তাই প্রাথমিকভাবে ঝাইকে বিশ্বকাপের স্কোয়াডে রাখার সাহস দেখিয়েছিলেন নির্বাচকরা। কিন্তু টুর্নামেন্ট শুরুর সপ্তাহতিনেক আগে এসেও পুরোপুরি সুস্থ না হওয়ায় ঝুঁকি নিতে নারাজ অজি থিঙ্কট্যাঙ্ক। পরিবর্ত হিসেবে তাঁর নেমসেক কেন রিচার্ডসনকে বিশ্বকাপগামী দলে সুযোগ দিলেন নির্বাচকরা।

তবে রিহ্যাবিটেশন প্রক্রিয়ায় দুরন্ত সাড়া মেলার পরেও ঝাইয়ের বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়ায় হতাশ অস্ট্রেলিয়া দলের ফিজিও ডেভিড বেকলে। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তরফ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে বেকলে জানান, ‘সাম্প্রতিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর নেটে বল করার সুযোগও দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু প্রত্যাশা অনুযায়ী দ্রুত কাঁধের চোটের উপশম না হওয়ায় বিশ্বকাপের স্কোয়াড থেকে ঝাইকে বাইরে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা।’

পরিবর্ত হিসেবে ২০ ওয়ান ডে ম্যাচে ২৯টি উইকেটের মালিক কেন রিচার্ডসনের সামনে খুলে গেল বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ। ব্রিসবেনে অস্ট্রেলিয়ার প্রাক-বিশ্বকাপ প্রস্তুতি শিবিরের শুরু থেকেই দলের সঙ্গে ছিলেন কেন। পাশাপাশি পিঠের চোট সারিয়ে প্রস্তুতি শিবিরে অ্যাসেজের জন্য ফিরে আসার লড়াই চালাচ্ছেন জোস হ্যাজেলউডও। ২০১৫ বিশ্বকাপ জয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখলেও আসন্ন বিশ্বকাপে হ্যাজেলউডের সার্ভিস পাবে না অজি শিবির।

১ জুন আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা।

অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ স্কোয়াড
অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), জেসন বেহেনড্রফ, অ্যালেক্স ক্যারি (উইকেটরক্ষক),নাথান কোল্টার-নাইল, প্যাট কামিন্স, উসমান খাজা, নাথান লায়ন, শন মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, কেন রিচার্ডসন, স্টিভ স্মিথ, মিশেল স্টার্ক, মার্কাস স্টয়নিস, ডেভিড ওয়ার্নার ও অ্যাডাম জাম্পা।