বিশ্বকাপের আগে বড়সড় ধাক্কা খেল পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের বাকি আর মাত্র ৩৯ দিন। এর আগেই বড়সড় ধাক্কা খেল শিরোপার অন্যতম দাবিদার পাকিস্তান। কারণ এবারের বিশ্বকাপ যে ইংল্যান্ডের মাটিতেই। এই কন্ডিশনে পাকিস্তানের সাফল্যগাঁথা কারোরই অজানা নয়। ২০০৯ সালে সেখানেই প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শিরোপার স্বাদ পেয়েছিল পাকিস্তান। এরপর ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে আয়োজিত চ্যাম্পিয়নস ট্রফির শিরোপাও নিজেদের ঘরে তুলেছে পাকিস্তান।

তাই অন্ততপক্ষে ইংলিশদের কন্ডিশনে পাকিস্তানকে ফেবারিটের তালিকা থেকে বাদ দিতে চাইবেন না ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা। একাধিক শিরোপা জেতা দলটিও এবার বিশ্বকাপ জিতে দেশটিতে শিরোপার হ্যাটট্রিক পূর্ণ করতে চায়। কিন্তু এর আগেই দুঃসংবাদ শুনতে হল পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের।

প্রায় দুই মাসব্যাপী অনুষ্ঠিতব্য ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় এই টুর্নামেন্টে স্ত্রী-সন্তানদের পাশে পাবেন না পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা। দেশটির ক্রিকেট বোর্ড পিসিবির এক আদেশে জীবনসঙ্গীদের দেশে রেখেই বিশ্বকাপ খেলতে হবে সরফরাজ বাহিনীকে।

এর আগে বিশ্বকাপের সময় স্ত্রী-পরিবারদের পাশে পেতে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের কাছে অনুরোধ করেছিলেন দলটির অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। কিন্তু সরফরাজদের সেই আবেদন নাকচ করে দিয়েছে পিসিবি।

সরফরাজের দাবি ছিল, এত বড় টুর্নামেন্টে প্রশান্তি পেতে স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গ দরকার। বিশেষ করে কোনো ম্যাচ হারার পর হোটেলে ফিরে স্ত্রী-সন্তানকে দেখলে বিষন্নতা অনেকটাই কেটে যাবে। তাছাড়া মানসিকভাবেও নিজেদের চাঙ্গা করার জন্য পরিবারকে পাশে দরকার বলে জানিয়েছেন সরফরাজ।

কিন্তু সরফরাজের দাবি প্রত্যাখ্যান করেছে পিসিবি। জানা যায়, অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপের আগে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে একদিনের সিরিজ চলাকালীন পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা স্ত্রী এবং ছেলেমেয়েদের নিয়ে যেতে পারবেন। কিন্তু বিশ্বকাপ শুরুর আগেই ইংল্যান্ড ছাড়তে হবে পরিবার পরিজনদের। পাকিস্তান টিম ম্যানেজমেন্টের পক্ষ থেকে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে কী কারণে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের এমন সিদ্ধান্ত সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি পিসিবির কর্মকর্তারা।