বাংলাদেশের বিশ্বকাপ জার্সি উম্মোচন

বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে নিজেরে রিফ্রেজেন্টের জন্য মাঠে নামেন লাল-সবুজ জার্সি পরে। যাতে সহজেই সবাই বাংলাদেশকে চিনতে পারেন। এ যেমন, ২২ গজে তামিমের হাতে ব্যাট, গায়ে লাল-সবুজের জার্সি; তাতেই সবাই সোনার বাংলাকে খুঁজে পায়। আর এই জার্সিও আমাদের অহংকার। গতকাল একটি অনুষ্ঠানে যেমনটা বলেছিলেন বিসিবির কর্তাব্যক্তি জালাল ইউনুস। তার মতে, বাংলাদেশের জার্সি গায়ে খেলা দেখাও একটা অহংকার এবং আত্মতৃপ্তির ব্যাপার। তাই সবাইকে টাইগারদের বিশ্বকাপ জার্সি কেনার আহ্বান জানান তিনি।

তবে অবশেষে দ্বাদশ বিশ্বকাপের জন্য বাংলাদেশের দুটি জার্সি উম্মোচন করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। যার একটি সবুজ (সবুজ-গাঢ় সবুজ) এবং অন্যটি লাল (অ্যাওয়ে)। কিন্তু দুঃখজনক ব্যাপার হলো, এই জার্সি উম্মোচনের পরই অনেক ভক্ত-সমর্থক তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। কারো বক্তব্য, টাইগারদের অ্যাওয়ে (লাল) জার্সিটি জিম্বাবুয়ের জার্সির সঙ্গে অনেকাংশে মিল। আবার সবুজ জার্সির সঙ্গেও অনেকে আয়ারল্যান্ডের জার্সির মিল খুঁজে পেয়েছেন। যা নিয়ে হাস্যরসেও মেতেছেন তারা। একজন তো মজারচ্ছলে ফেসবুকে পোস্ট করেছেন, মানবতা আজও বেঁচে আছে। বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়া দুই দল জিম্বাবুয়ে ও আয়ারল্যান্ডকে মনে করিয়ে দিতে বিসিবির সুন্দর উদ্যোগ। ধন্যবাদ বিসিবিকে।

সে আর যাই হোক, এবার বাংলাদেশ ক্রিকেটপ্রেমীরা চাইলে এই দুটি জার্সি কিনতে পারবেন অতি সহজে। কারণ বিসিবি ভক্তদের দোরগৌড়ায় অর্জিনাল জার্সি পৌছে দিতে বেশ কিছু উদ্যোগ হাতে নিয়েছে।

জানা গেছে, দেশের ২ শীর্ষ ব্র্যান্ড অঞ্জনস ও জেন্টলপার্কের প্রায় শতাধিক আউটলেটে বিক্রি হবে বাংলাদেশ দলের জার্সি। এছাড়া ক্রেতা সাধরণে সুযোগ থাকছে অনলাইন স্টোর থেকে পছন্দের জার্সি কেনার। সেক্ষেত্রে ক্রিকশপ বিডি, জার্সি ফ্রিক বিডি এই দুই অনলাইন প্রতিষ্ঠান তাদের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে বিক্রি করবে জার্সি। এক্সক্লুসিভ পার্টনার ডিমানি অ্যাপের মাধ্যমে জার্সি কিনতে পারবেন ক্রেতারা। আর সারাদেশে ক্রিকেট ভক্তদের মধ্যে জার্সি পৌঁছে দেওয়ার কাজ করবে রবিন স্পোর্টস।

এছাড়া ক্রেতা সাধারণের কথা মাথায় রেখে টাইগার দলের জার্সির দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১১৫০ টাকা। শুধু জার্সি নয়, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হওয়া এই প্রতিষ্ঠান থেকে চাইলে ক্রিকেট দলের অন্যান্য স্পোর্টস সারঞ্জামও কিনতে পারবেন ভক্তরা।