ক্ষমা চাইলেন বিরাট কোহলি

এবি ডি ভিলিয়ার্স, শিমরন হেটমায়ার, ডেল স্টেইন, মঈন আলি, টিম সাউদি, মার্কাস স্টয়নিস, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোমের মতো একাধিক প্রথম সারির বিদেশি তারকা। বিরাট কোহলি পার্থিব প্যাটেল, যুজবেন্দ্র চাহাল, উমেশ যাদবদের মতো ভারতীয় নক্ষত্ররাও ছিলেন দলে। এর পর আর কোনওভাবেই বেঙ্গালুরুকে দুর্বল দল বলা যেত না। কিন্তু তার পরও এমন ভরাডুবি! যদিও প্রতিবারই বেঙ্গালুরুর হেভিওয়েট দল গড়ে। কিন্তু সাফল্য এসে ধরা দেয় না। এবারও তাই হল। প্লে-অফে জায়গা করে নিতে ব্যর্থ বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন বেঙ্গালুরু।

শনিবার হায়দরাবাদকে চার উইকেটে হারিয়েছে বেঙ্গালুরু। কিন্তু তাতে তাদের কোনও লাভ হয়নি। লাভ হয়েছে কলকাতার। বিরাটদের জয়ে কলকাতা প্লে-অফে যাওয়ার জন্য ভেসে রয়েছে। ১৭৫ রান তুলেছিল হায়দরাবাদ। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই তিন উইকেট খুইয়ে ফেলে বেঙ্গালুরু। এর পর হেটমায়ার ও গুরকিরাত সিংয়ের সৌজন্যে চার বল বাকি থাকতেই ম্যাচ জেতে তারা। চলতি আইপিএলে এটাই ছিল কোহলির দলের শেষ ম্যাচ। আর তাই মরশুমের শেষ ম্যাচ খেলার পর আবেগতাড়িত দলের ক্যাপ্টেন কোহলি। ম্যাচ শেষে তিনি সমর্থকদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিলেন।

গ্রুপ পর্বের ১৪টি ম্যাচের মধ্যে মাত্র পাঁচটিতে জয় পেয়েছে বেঙ্গালুরু। হারতে হয়েছে আটটি ম্যাচ। ১১ পয়েন্ট নিয়ে আট দলের টুর্নামেন্টের পয়েন্ট টেবিলের সাত নম্বরে রয়েছে তারা। আজ পাঞ্জাব জিতে গেলে অবশ্য টেবিলে সবার নিচে চলে যেতে হবে বেঙ্গালুরুকে। চলিত আইপিএল যেন দুঃস্বপ্নের মতো কাটল কোহলিদের। একটা সময় অনেক সমর্থকের মনে হয়েছিল, এবার হয়তো একটাও ম্যাচ জিততে পারবে না কোহলির দল। সমর্থকদের কথা ভেবে বিরাট তাই মর্মাহত। বলেছেন, ”আমরা আপনাদের জন্য কিছুই করতে পারলাম না এবার। আমাদেরক্ষমা করে দেবেন। এবার আর সুযোগ নেই। পরের আইপিএলে আপনাদের প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করব।”

একটানা হারের পরও সমর্থকরা সমর্থন জুগিয়েছেন। বিরাট তাই কৃতজ্ঞতা জানালেন। বললেন, ”বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচেও তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করে ছিলেন দর্শকরা। প্রায় মাঝরাত পর্যন্ত ওরা গ্যালারিতে ছিলেন। ম্যাচের শেষ বল পর্যন্ত সবাই আমাদের জন্য গলা ফাটিয়েছে। এই সমর্থন সত্যিই আমাদের সম্পদ। আপনাদের অেক ধন্যবাদ। আপনাদের মুখে হাসি ফোটাতে না পারার জন্য সত্যিই খুব দুঃখিত।’