আসগরই আমার ক্যাপ্টেন, দাবি আফগান অধিনায়কের

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে স্বপ্নের উত্থান৷ তবে বিশ্বকাপের ঠিক আগেই অবাঞ্ছিত বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে আফগান ক্রিকেট৷ আইসিসি’র ফ্ল্যাগশিপ টুর্নামেন্টের মাস দু’য়েক আগে নেতৃত্বে বড়সড় রদবদল করে আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড৷ কোচ তথা টিম ম্যানেজমেন্টকে কিছু না জানিয়েই ক্যাপ্টেন্সি থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় আসগর আফগানকে৷ পরিবর্তে আলাদা আলাদা ফর্ম্যাটে পৃথক ক্যাপ্টেন বেছে নেওয়া হয়৷

বিষয়টা ভালোভাবো নেননি আফগান ক্রিকেটাররা৷ মোহম্মদ নবি, রশিদ খানের মতো দলের গুরুত্বপূর্ণ তারকারা প্রকাশ্যেই বোর্ডের এমন সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেন৷ আসগরের অপসারণ অক্রিকেটীয় কারণে বলে রশিদরা পাশে দাঁড়ান তাদের প্রিয় নেতার৷ যদিও তাতে এসিবি’র সিদ্ধান্ত বদল হয়নি৷ তাদের নির্বাচিত ক্যাপ্টেন হিসাবে বিশ্বকাপে জাতীয় দলের নেত্বের দায়ভার চাপে গুলবদিন নায়েবের কাঁধে৷

যার সুদৃঢ় অধিনায়কত্বে আফগান ক্রিকেটের শক্তিশালী হয়ে ওঠা, সেই আসগরের প্রতি অবিচারের প্রসঙ্গ মন থেকে উড়িয়ে দিতে পারছেন না বর্তমান ক্যাপ্টেন নায়েবও৷ তাই তিনি দলের ঐক্য বজায় রাখতে অত্যন্ত তৎপর৷ বিশ্বকাপ শুরুর ঠিক আগে আইসিসি’র অনুষ্ঠানে নায়েব জানান যে, হতে পারে এই মুহূর্তে আফগানিস্তানের নেতৃত্ব তাঁর হাতে রয়েছে৷ তবে আসগর আফগানকে এখনও নিজের ক্যাপ্টেন মনে করেন তিনি৷

নায়েব বলেন, ‘আয়ারল্যান্ড ও স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে আমরা শেষ যে ক’টা ম্যাচ খেলেছি, আসগর আমাকে প্রভূত সাহায্য করেছে৷ ও আমাকে গাইড করেছে৷ আমার কাছে আসগর শুধু একজন দলের ক্রিকেটার নয়, ও এখনও আমার ক্যাপ্টেন৷’

পরে গুবদিন আরও বলেন, ‘আসগরের সমর্থন দরকার আমার৷ শুধু ওর নয়, বরং নবি, রশিদের মতো দলের সব অভিজ্ঞ ক্রিকেটারেরই সমর্থন প্রয়োজন৷ আমাদের সবার একটাই লক্ষ্য, আমরা আফগানিস্তানের হয়ে মাঠে নামতে চাই একজোট হয়ে৷ দল হিসাবে আমরা লড়তে চাই৷ তা সে যেই ক্যাপ্টেন হোক না কেন৷’

আফগানিস্তান দল:

গুলবাদিন নায়েব (অধিনায়ক), মোহাম্মদ শাহজাদ (উইকেটরক্ষক), নুর আলী জদরান, হজরতউল্লাহ জাজাই, রহমত শাহ, আসগর আফগান, হাশমতুল্লাহ শাহিদী, নাজিবুল্লাহ জদরান, সামিউল্লাহ শেনওয়ারি, মোহাম্মদ নবী, রশিদ খান, দৌলত জদরান, আফতাব আলম, হামিদ হাসান ও মুজিব উর রহমান।